Vodafone Smart E9 – Full phone specifications

Vodafone-Smart-E9-Full-phone-specifications_mini
5
(1)

Vodafone Smart E9 – Full phone specifications & Review

NETWORK

Technology GSM / HSPA / LTE
2G bands GSM 850 / 900 / 1800 / 1900 – SIM 1 & SIM 2 (dual-SIM only)
3G bands HSDPA 850 / 900 / 1900 / 2100
4G bands LTE 800/900/1800/2100/2600
  LTE 700/850/1800/2100/2600
Speed HSPA 42.2/5.76 Mbps, LTE Cat4 150/50 Mbps
GPRS Yes
EDGE Yes

LAUNCH

Announced 2018, December
Status Available. Released 2018, December

BODY

Dimensions 137.6 x 65.7 x 9.8 mm (5.42 x 2.59 x 0.39 in)
Weight 134 g (4.73 oz)
SIM Single SIM (Nano-SIM) or Dual SIM (Nano-SIM, dual stand-by)

DISPLAY

Type IPS LCD capacitive touchscreen, 16M colors
Size 5.0 inches, 64.5 cm2 (~71.4% screen-to-body ratio)
Resolution 480 x 960 pixels, 18:9 ratio (~215 ppi density)

PLATFORM

OS Android 8.1 Oreo (Go edition)
Chipset Mediatek MT6739 (28 nm)
CPU Quad-core 1.5 GHz Cortex-A53
GPU PowerVR GE8100

MEMORY

Card slot microSD, up to 32 GB
Internal 8 GB, 1 GB RAM

MAIN CAMERA

Single 5 MP
Features LED flash
Video [email protected]

SELFIE CAMERA

Single 2 MP
Video

SOUND

Loudspeaker Yes
3.5mm jack Yes

COMMS

WLAN Wi-Fi 802.11 b/g/n, hotspot
Bluetooth 4.2, A2DP, LE
GPS Yes, with A-GPS
Radio FM radio
USB microUSB 2.0

FEATURES

Sensors Accelerometer, proximity

BATTERY

  Non-removable Li-Ion 2000 mAh battery

MISC

Colors Anthracite
SAR EU 0.91 W/kg (head)     1.63 W/kg (body)    
Price About 70 EUR

Vodafone ব্যান্ডর ফোন বিশ্বে বহুল প্রচলিত। এর ব্যান্ডের খ্যাতি সর্ম্পকে আমরা সাবাই কম-বেশি জানি। বিশ্বের সবথেকে দামী ফোন গুলোর মধ্যে Vodafone একটি ব্যান্ড। বর্তমানে  Global market-এ Vodafone ব্যন্ডের ফোনের লেটেস্ট Vodafone Smart E9 । ফোনটি ২০১৮ সালের ডিসেম্বর মাসে অ্যানাউন্স হয় এবং ২০১৮ সালের ডিসেম্বর মাসেই রিলিজ হয়। ফোনটির ডাইমেনশন: 137.6 x 65.7 x 9.8 mm (5.42 x 2.59 x 0.39 in) । ফোনটির ওজন: ১৩৪ গ্রাম। ফোনটিতে ২জি, ৩জি, ৪জি সাপোর্ট করে। সিম: ডুয়েল ন্যানো সিম অথা সিঙ্গেল ন্যানো সিম Single SIM (Nano-SIM) or Dual SIM (Nano-SIM, dual stand-by) । টার্চস্কিন: IPS LCD capacitive touchscreen, 16M colors । ফোনটির সাইজ: 5.0 inches, 64.5 cm2 (~71.4% screen-to-body ratio) যার রেজুলেশন 480 x 960 pixels, 18:9 ratio (~215 ppi density) । প্রটেকশন গ্লাস হিসেবে থাকছে: N/A । ফোনটির অপারিটিং সিস্টেম: Android 8.1 Oreo (Go edition) । চিপসেট আছে: Mediatek MT6739 (28 nm) । প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে: Quad-core 1.5 GHz Cortex-A53 । জিপিইউ: PowerVR GE8100 । মেমোরী কার্ড: microSD, up to 32 GB) অতিরিক্ত মেমোরী কার্ড ব্যবহার করতে পারবেন ।

ইন্টারনাল মেমোরী ও র‌্যাম : 8 GB এবং 1 GB RAM । সামনে ০৫ মেগা/পিঃ ডুয়েল ক্যামেরা  ও এলইডি ফ্লাস LED flash এবং সেল্ফি ক্যামেরা 2 মেগা/পিঃ। সাথে ওয়াইফাই/ব্লুটুথ/জিপিস/রেডিও/ইউএসবি সবই থাকছে। ফিচার হিসেবে: Accelerometer, proximity । ব্যাটারী: নন রিমুভাবল ব্যাটারী Non-removable Li-Ion 2000 mAh battery । ফোনটির রং: ফোনটিতে 1 টা কালার ভার্শন রয়েছে Anthracite

সুতরাং আশা করি ফোনটি অনেক ভাল কর্মদক্ষতা প্রদর্শন করবে। হ্যাং কম হবে, টার্চ স্মুদলি কাজ করবে। সেন্সসর গুলো অনেক পাওয়ারফুল, পটেকশন গ্লাসটাও অনেক দারুন, ক্যামেরা গুলো অনেক ভাল কোয়ালিটির হওয়াই উচ্চ রেজুলেশনের পরিস্কার ফটো/ছবি আশার করা যায়। হাইকোয়ালিটির(এইচডি) ভিডিও ধারন করতে পারবেন । আন্তর্জাতিক বাজারে মোটা-মুটি ভাল মানের ফোন বলতে আমরা এই ধরনের ফোনগুলোকেই বুঝি । প্রায় সব ফোনই বর্তমানে চাইনাতে তৈরি করা হয় অথাৎ চাইনিজ বা সব ফোনই মেইড বাই চাইনা (কিছু ফোন ব্যাতিত)। তবে বিভিন্ন কম্পানি ও দেশ তথা স্থান, কাল ও পাত্র সাপেক্ষ্যে ফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান গুলো ফোনের কোয়ালিটি বিভিন্ন রকম করে থাকে। অথাৎ একই  মডেলের  ফোন কিন্তু ভিন্ন ভিন্ন দেশে ও জাতির জন্য ভিন্ন ভিন্ন কোয়ালিটিতে তৈরি করা হয়।

 উদাহারণ স্বরুপ বলা যায়: Vodafone Smart E9 যদি বাংলাদেশ থেকে ক্রয় করেন তবে একধরনের কোয়ালিটি পাবেন আর যদি ভারত বা অন্য কোন দেশ যেমন: সৌদি আরব বা সিংগাপুর থেকে (ক্রয়করেন)বা নিয়ে আসেন সেই ফোনের কোয়ালিটি কিন্তু ভিন্ন হবে।  আপনি যে phoneই  ক্রয় করেন না কেন, একটু দেখে- শুনে, চিন্তা করে বুঝে কিনলে কখনোই আশাকরি ঠকবেন না । একটি সাধারন নোরমাল ব্যান্ডের ফোনের চাইতে একটু বেশি টাকা দিয়ে যদি আপনি ভাল কোন ব্যান্ডের Phone যেমন Vodafone বা অন্য কোন ভাল ব্যান্ড ক্রয় করেন তাহেল আপনার ফোনটি- টিকবে বেশি দিন। ফোনের চার্জও ও অন্যান্য সব কিছুই ভাল পাবেন।দারুন অভিজ্ঞতা হবে।আপনিও ফোনটি ক্রয় কের ভাল থাকবে আশা করি। পৃথিবীতে Vodafone ব্যান্ড, অনেক ভাল ও নামকরা ব্যান্ড। Vodafone Smart E9 ফোনটি কনফিগারেশন কম্বিনেশন টাও অনেক ভাল।

নোটঃ প্রত্যেকটি ফোনই কিন্তু সবদিক থেকে সয়ংসম্পূর্ণ নয়। প্রত্যেকটি ফোনের কিছু বিশেষ দিকে থাকে এবং অপর দিকে কিচু খারাপ দিক থাকে। যেমন ধরুন: কোন ফোনের ক্যামেরা সিঙ্গেল কিন্তু র‌্যাম বেশি আবার কোন ফোনের র‌্যাম ও ইন্টারনাল মেমোরী বেশি কিন্তু ক্যামেরা সিঙ্গেল ও কোয়ালিটি খারাপ। আবার কোন কোন ফোনের অ্যান্ডরিড ভার্শন কম তো অতিরিক্ত অন্য কোন ভাল ফিচার দেওয়া আছে।কোন কোন ফোনের ক্ষেত্রে কালার ভার্শন কম থাকায় আপনার কালার পছন্দ হবে না।সব মিলিয়ে একটি ফোনের যেটা ভাল অন্য ফোনের সেটা আবার ভাল নাও হতে পারে। Vodafone Smart E9 তার ব্যতিক্রম নয়। ফোনটির মাত্র ১ টি কালার ভার্শন Anthracite রয়েছে সেকারনে করো কারো কাছে এটা পছন্দ নাও হতে পারে। অন্যান্য ফোনগুলো দেখুন…

ডিসক্লেমার/ বিঃদ্রঃ এই পেজের সকল তথ্য একশত ভাগ সত্য নাও হতে পারে।

How useful was this post?

Click on a star to rate it!

Average rating 5 / 5. Vote count: 1